শনিবার l ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ l ৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ l১৯শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি
কাজিপুরে সড়কের কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ ॥ তদারকির অভাব - Daily Ajker Sirajganj
শিরোনাম:
দুই এমপি করোনায় আক্রান্ত শাহজাদপুরের বাঘাবাড়িতে একটি গ্রাম পুরুষ শূন্য সিরাজগঞ্জে পুরোহিত ও সেবাইতদের দক্ষতা বৃদ্ধি বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় আগামি ৬ ফেব্রুয়ারি পযর্ন্ত বন্ধ ফেরদৌস ওয়াহিদ রুশো’র মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ রায়গঞ্জের তীব্র শীতে ডিমের দোকানে উপচে পড়া ভিড় রায়গঞ্জে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের বিশেষ কার্যক্রম উদ্বোধন বেলকুচিতে অসহায়দের মাঝে কম্বল বিতরণ করলেন কাউন্সিলর আলম প্রামাণিক রায়গঞ্জে সাংবাদিক পুত্র সুব্রত কুমার পেলেন চীনের এক্সিলেন্ট স্টুডেন্ট অ্যাওয়ার্ড বেলকুচিতে ডেসওয়া ট্রাস্টের কমিটি গঠন

কাজিপুরে সড়কের কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ ॥ তদারকির অভাব

বিশেষ প্রতিবেদক :
সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রসস্থকরণ কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা জানায়, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঠিক তদারকির অভাব ও উদাসীনতার কারণেই নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করে নামে মাত্র দায়সারাভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। সরেজমিনে দেখা যায়, সড়ক ও জনপথ বিভাগের আঞ্চলিক মহাসড়ক প্রসস্থকরণ কাজে কাজিপুরের গান্ধাইল হাজীর ব্রিজের থেকে মাইজবাড়ির ছালাভরা এলাকা পর্যন্ত ৮.২ কি.মি. কাজ বাস্তবায়নের কাজ পায় যৌথভাবে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মের্সাস দাস ট্রেডার্স ও রানা বিল্ডার্স। যার প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৭ কোটি ৩৬ লাখ ৩৩ হাজার ৭৬২ টাকা এবং প্রকল্পের মেয়াদ ২৯ অক্টোবর ২০২০ থেকে ২০২২সালের ২৫-জুন পর্যন্ত।

কাজটির বাস্তবায়নে রয়েছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সিরাজগঞ্জ। স্থানীয় কুড়ালিয়া গ্রামের সোহেল রানা, বাঔখোলা গ্রামের আজিজুল হক, গান্ধাইল গ্রামের ব্যাবসায়ী জুয়েল সরকারসহ একাধিক এলাকাবাসী অভিযোগ করে জানান, আঞ্চলিক মহাসড়ক সম্প্রসারণ কাজে ব্যবহৃত নিম্নমানের বালু ও ইট। নিম্নমানের এসব সামগ্রী ব্যবহার করায় এলাকায় ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার অবগত করা হলেও এর কোন সুরাহা হয়নি বলে জানান তারা। এদিকে এ প্রকল্পে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার বন্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয় সচেতন মহল। নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহারের কথা স্বীকার করে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের এক প্রতিনিধি জানান, স্থানীয়ভাবে মালামাল সংকট ও সাপ্লায়ারদের কারণে এমনটা হচ্ছে।

এবিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগের এসও আল-আমিন জানান, বিগত দু’দিন আগে কিছু ইটের খোয়া নিম্ন মানের হওয়ার সেগুলো তাৎক্ষণিকভাবে বাদ দেওয়া হয়েছে। এর পরেও যদি নতুন করে নিম্নমানের ইটের ব্যবহৃত হয়ে থাকে অবশ্যই সেগুলো অপসরণ করা হবে। সওজের এসডি প্রকৌশলী জাহিদুর রহমান বলেন, আমরা শোনার পর নিম্নমানের সামগ্রী বাদ দিতে বলেছি ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে ভালো মানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার জন্য কঠোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

আজকের সিরাজগঞ্জ / মুক্তা পারভীন

© All rights reserved © 2017 Dailyajkersirajgonj.com

Desing & Developed BY লিমন কবির